ঢাকা: ২০১৮-০৫-২১ ১১:০৭

Khan Brothers Group

একুশে বইমেলার পর্দা উঠছে বৃহস্পতিবার

এশিয়ানমেইল২৪.কম

প্রকাশিত : ০৭:৩১ পিএম, ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ বুধবার | আপডেট: ০৬:২৯ পিএম, ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ বৃহস্পতিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক: দিন দশেক পরেই ডানা মেলবে ঋতুরাজ বসন্ত। বসন্তরূপের আগমনী বার্তা মিলছে ঠিক যেন এখনই। আর এমন প্রকৃতিরূপে প্রাণ মিলিয়ে আগামীকাল বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) বসছে অমর একুশে বইমেলা। প্রগতি আর সৃজনশীলতায় ভর করে এ মেলার আবেদন যেন দিনে দিনে বাড়ছেই। বসন্তের শুরু লগ্নের এমন আয়োজন ভাষার মাসকে যেন আরও অর্থবহ করে তুলছে। বাঙালির জাতিসত্তার আবেগ আর ভালোবাসার নিগূঢ় মিশ্রণে বছর ঘুরে সার্বজনীন রূপ পায় অমর একুশে বইমেলা।

বিকেল ৩টায় মাসব্যাপী একুশে বইমেলা উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বাংলা একাডেমি এই মেলার আয়োজন করে আসছে। প্রধানমন্ত্রী এদিন মেলার ওয়াই-ফাই সংযোগ ও ওয়েবসাইট এবং আন্তর্জাতিক সাহিত্য সম্মেলনেরও উদ্বোধন করবেন। বইমেলা চলাকালে ২২ থেকে ২৩ ফেব্রুয়ারি এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। বাংলা একাডেমির মাসব্যাপী অমর একুশে বইমেলা যথারীতি আগামী ১ ফেব্রুয়ারি শুরু হবে। চলবে ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত।

মেলার আয়োজন উপলক্ষে মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। অন্য বছর থেকে এবারের মেলার পরিসর বাড়ানো হয়েছে বলে আয়োজক পক্ষ থেকে জানানো হয়।

বইমেলা অনুষ্ঠিত হবে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ এবং একাডেমি সম্মুখস্থ ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রায় ৫ লাখ বর্গফুট জায়গায়। আর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশকে ১২টি চত্বরে বিন্যস্ত করা হয়েছে।

এ বছর একাডেমি প্রাঙ্গণে ৯২টি প্রতিষ্ঠানকে ১৩৬টি, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের অংশে ৩৬৩টি প্রতিষ্ঠানকে ৫৮৩টি ইউনিটসহ মোট ৪৫৫টি প্রতিষ্ঠানকে ৭১৯টি ইউনিট এবং বাংলা একাডেমিসহ ২৪টি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে মোট ১৫ হাজার ৫৩৬ বর্গফুট আয়তনের ২৪টি প্যাভিলিয়ন বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

গত বছর বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে মোট ৪০৯টি প্রতিষ্ঠানকে ৬৬৩টি ইউনিট বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। আর প্যাভিলিয়ন ছিল ১৫টি।

এছাড়া ১৩৬টি লিটল ম্যাগাজিনকে লিটল ম্যাগাজিন কর্নারে স্টল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। ক্ষুদ্র প্রকাশনা সংস্থা এবং ব্যক্তি উদ্যোগে যারা বই প্রকাশ করেছেন তাদের বই বিক্রি/প্রদর্শনের ব্যবস্থা থাকবে জাতীয় গ্রন্হকেন্দ্রের স্টলে। বইমেলায় বাংলা একাডেমি এবং মেলায় অংশগ্রহণকারী অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ২৫ শতাংশ কমিশনে বই বিক্রি করবে।

একাডেমি প্রাঙ্গণ এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলা একাডেমির ১টি প্যাভিলিয়ন, ৪ ইউনিটের ২টি, একাডেমির শিশু কিশোর উপযোগী বইয়ের জন্য ১টি এবং একাডেমির সাহিত্য মাসিক উত্তরাধিকারের ১টি স্টল থাকবে।

মেলার আয়োজন নিয়ে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান বলেন, মেলার সার্বিক আয়োজন নিয়ে আশাবাদী। বাঙালি জাতির সবচেয়ে বড় আয়োজন এটি। এমন একটি আয়োজনের জন্য আমাদের অপেক্ষার জন্য অন্ত থাকে না।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যেই রূপ মিলেছে মেলার। আজকে রাতের মধ্যেই প্রায় পূর্ণতা পাবে। মেলায় অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোকে তাগিদ দেয়া হয়েছে।

এক প্রকাশনীর সত্ত্বাধিকারী বলেন, সব ঠিক থাকলে গতবারের মতো এবারের মেলাও সফল হবে। রাজনৈতিক সংঘাতই মেলা আয়োজনের জন্য বড় বাধা। আমরা আশাবাদী, মেলার সাফল্যে সবাই সহযোগিতা করবে। প্রাণে প্রাণ মিলিয়ে গেয়ে উঠবে মাতৃভাষার গান।