ঢাকা: ২০১৮-১০-২৪ ৯:১২

Khan Brothers Group

চট্টগ্রামে চার নারী ধর্ষণ: তদন্তের দায়িত্ব পেল পিবিআই

এশিয়ানমেইল২৪.কম

প্রকাশিত : ০১:২৭ পিএম, ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৫:৫৬ পিএম, ২৬ ডিসেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার


চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলার শাহ মীরপুরে একই পরিবারের চার নারীকে ধর্ষণের মামলায় তদন্তের দায়িত্ব পেয়েছে পুলিশের ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন -পিবিআই।

কর্ণফুলী থানা পুলিশ ওই মামলা নিতে গড়িমসি করার পর আসামি গ্রেফতারেও গাফিলতি করছে বলে অভিযোগ আসার প্রেক্ষাপটে তদন্তের দায়িত্বে এই পরিবর্তন এল।   

পিবিআই চট্টগ্রাম মহানগর অঞ্চলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মঈন উদ্দিন বলেন, থানা পুলিশের কাছ থেকে আমরা মামলার দায়িত্ব নিয়েছি।

এর আগে গতকাল সোমবার এই ঘটনার আলামত সংগ্রহ ও মামলা নেয়ার ক্ষেত্রে পুলিশের আংশিক ব্যর্থতা ছিল বলে স্বীকার করেছেন চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের (সিএমপি) উপকমিশনার হারুন অর রশিদ হাজারী।

গত ১২ ডিসেম্বর গভীর রাতে কর্ণফুলী উপজেলার বড় উঠান এলাকায় এক প্রবাসীর বাড়ির গ্রিল কেটে ডাকাতি করতে গিয়ে ডাকাতরা তিন প্রবাসী ভাইয়ের স্ত্রী ও ও তাদের এক বোনকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। এই ঘটনায় থানায় মামলা করতে গেলেও পুলিশ মামলা গ্রহণ করতে গড়িমসি করে। পরবর্তীতে স্থানীয় সাংসদ ও ভূমি প্রতিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদের হস্তক্ষেপে পুলিশ এক সপ্তাহ পর মামলা গ্রহণ করে। এরপর আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশের নীরব ভূমিকা নিয়ে চট্টগ্রামে নানা কর্মসূচি পালন করে আসছে সুশীল সমাজ।

এদিকে মামলা নিতে বিলম্ব এবং ধর্ষকদের গ্রেফতারে গড়িমসির অভিযোগে কর্ণফুলী থানার ওসি ওসি সৈয়দুল মোস্তফাকে প্রত্যাহারের দাবিতে গত ২২ ডিসেম্বর মানববন্ধন করে নারী উন্নয়ন ফোরাম নামের স্থানীয় একটি সংগঠন।

সংগঠনটির অভিযোগ, অনেক তালবাহানা শেষে পুলিশ মামলা নিয়ে কয়েকজনকে গ্রেফতারে করলেও তাদের রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ না করে ‘অযথা সময়ক্ষেপণ’ করছে।

ঘটনার পর থেকে তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন ইমতিয়াজ উদ্দিন বাপ্পি, মো. সুমন ওরফে বাবু ও ফারুক মাহমুদ।  

-জেডসি