ঢাকা: ২০১৯-০৩-২১ ২১:৩২

Khan Brothers Group

চাঁদপুর-৫ আসনের জনপ্রিয় মুখ প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন

এশিয়ানমেইল২৪.কম

প্রকাশিত : ০৩:৪১ পিএম, ১৯ মার্চ ২০১৮ সোমবার | আপডেট: ০৫:৪৪ পিএম, ২৬ মে ২০১৮ শনিবার

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে সরগরম হয়ে উঠেছে চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) আসনের রাজনীতি। মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ইতোমধ্যে নির্বাচনের পূর্র্ব প্রস্তুতি হিসেবে এলাকায় রাজনৈতিক, সামাজিক কর্মকান্ডসহ নানান কর্মসুচিতে অংশগ্রহন করছেন। এলাকার ভোটারদের কাছে নিজের অবস্থান তুলে ধরার চেষ্টা করছেন।  

এ আসনে মুক্তিযুদ্ধের ১ নং সেক্টর কমান্ডার ও আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম বীরউত্তম। প্রার্থী হতে চান এলাকার অত্যন্ত জনপ্রিয় বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন। এছাড়া কেন্দ্রীয় কৃষক লীগ নেতা শফিকুল আলম ফিরোজও এ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী।
 
তবে চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) আসনের নির্বাচনী দৌড়ে এখন পর্যন্ত এগিয়ে আছেন পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন। ব্যক্তি জীবনে প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন নির্লোভ ও পরোপকারি এবং সমাজসেবক হিসেবে হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তিবাসীর কাছে প্রিয়জন হিসেবে পরিগণিত হয়েছেন।



এ আসনের আওয়ামী লীগ সমর্থকদের সাথে কথা বললে তারা জানান, মাননীয় প্রধানমমন্ত্রী চাঁদপুর ৫ আসন থেকে যাকেই নৌকা প্রতীক দিবেন আমরা তার জন্য কাজ করব। তবে হাজিগঞ্জ ও শাহরাস্তির আওয়ামী রাজনীতির ধারাবাহিকতা ঠিক রাখতে হলে নতুনের বিকল্প নেই। বাকিটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ঠিক করবেন।

এ বিষয়ে শাহরাস্তি উপজেলার ভোলদিঘী গ্রামের ৭০ বছর বয়সী রহিম মিয়া (ছদ্মনাম) বলেন, “আমরা যদি বটগাছ পাই তাহলে তালগাছের দরকার কী?” বটগাছ একসাথে অনেককে ছায়া দেয়, আবার পরিবেশও ভালো রাখে। হোসেন সাব অইলেন একটা বটগাছ।

হাজিগঞ্জের বিলবাড়ীর আব্দুল মজিদ (ছদ্মনাম), হাটিলার জয়নাল মিয়া (ছদ্মনাম) জানান, এলাকার উন্নয়নে তারা এবার মোহাম্মদ হোসাইকেই চান এবং তার জন্য তারা যা করা প্রয়োজন তাই করবেন।

এ মানুষটি স্বপ্ন দেখেন হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তিকে একটি আলোকিত জনপদ হিসেবে গড়ে তোলার। তার এ স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য বিগত কয়েক বছর ধরে হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তির প্রত্যন্ত অঞ্চল চষে বেড়াচ্ছেন। নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন নানামুখী সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় এবং রাজনৈতিক কর্মকান্ডে। তার এসব কর্মকান্ডের কারণে হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তির প্রত্যন্ত অঞ্চলের জনগণের মধ্যে ইতোমধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। ১৯৯৮ সালের বন্যা, ২০০৪ সালের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তির কয়েকশ’ পরিবারকে আর্থিক সহায়তা, গৃহ নির্মাণ, গরু-ছাগল প্রদান, বিভিন্ন এতিমখানায় সহায়তার পাশাপাশি অদ্যাবধি সমাজের অবহেলিত দরিদ্র মানুষের সহায়তায় কাজ করে যাচ্ছেন।



এ প্রসঙ্গে প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন  জানান, আমি মনে করি মানুষের কল্যাণে সমাজের জন্য সবচেয়ে বড় মাধ্যম হলো রাজনীতি। বাবার আদর্শকে ধারণ করে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে মানুষের জন্য কাজ করে যেতে চাই। শৈশবকাল থেকেই বঙ্গবন্ধুর আদর্শই আমাকে আকৃষ্ট করেছে। বঙ্গবন্ধুর একজন আদর্শ সৈনিক হিসেবে বঙ্গবন্ধু কন্যার দেয়া ‘রূপকল্প ২০২১’ বাস্তবায়নে অবদান রাখতে চাই। পাশাপাশি হাজীগঞ্জ শাহরাস্তির অবহেলিত জনগোষ্ঠীর কল্যাণে কাজ করতে চাই। ভবিষ্যতে জননেত্রী শেখ হাসিনা যদি সে সুযোগ দেন তাহলে সমাজের কল্যাণে বিশেষ করে হাজিগঞ্জ-শাহরাস্তি এলাকার উন্নয়নে নিজেকে বিলিয়ে দিতে চাই।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ব্যক্তি জীবনে সাদামাটা জীবনযাপনকারী প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন হাজীগঞ্জ উপজেলার আহম্মদপুর গ্রামের প্রয়াত শিক্ষক নুরুল হক ভূইয়ার ছেলে। বাবার সূত্র ধরেই অত্যন্ত অল্প বয়সেই জড়িয়ে পড়েন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের রাজনীতির সঙ্গে। যার ধারাবাহিকতা বজায় থাকে ঢাকা কলেজের ছাত্রলীগের রাজনীতি, বুয়েট ছাত্রলীগের সহ- সভাপতি হিসেবে সম্পৃক্ত থেকে নিজেকে রাজনীতিতে জড়িয়ে রাখেন।
১৯৮০ সালে ঢাকা কলেজে ছাত্রলীগ করার অপরাধে ছাত্রদলের দুর্ধর্ষ ক্যাডার সানাউল হক নীরুর হাতে নির্যাতিত হন। ১৯৮৬ সালে জননেত্রী শেখ হাসিনার সংসদের ভেতরে বাইরে আন্দোলনের কৌশল বাস্তবায়নে সাহসী ভূমিকা এবং ১৯৮৭ সালে বুয়েটে নতুন ফ্রিডম পার্টি ঠেকাতে নিজের জীবন বাজি রেখে গুরুত্বরপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। ১৯৯১-৯৬ সালে প্রকৃচি আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন যা পরবর্তী সময়ে জনতার মঞ্চ প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।



২০০৫ সালে সন্ত্রাস বিরোধী ঐক্য কনভেনশন জাতীয় কমিটির সদস্য হিসেবে সক্রিয় ভূমিকা পালনের মাধ্যমে ২০০১ এর নির্বাচন পরবর্তী বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাস ও নির্যাতনের প্রতিবাদে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন। তাছাড়া বর্তমানে তিনি বঙ্গবন্ধু প্রকৌশলী পরিষদের সহ-সভাপতি, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, হাজীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মানিত সদস্য এবং চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টাম-লীর সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

প্রকৌশলী মোহাম্মদ হোসাইন পেশাগত জীবনে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের অধীন পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে দেশের বিদ্যুৎ সেক্টরের উন্নয়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। বিশেষ করে রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দেশীয় ও আন্তর্জাতিক অপপ্রচারের বিরুদ্ধে সরকারের হয়ে মূখ্য ভুমিকা পালন করেন। পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছেন তিনি।

একে