ঢাকা: ২০১৯-০২-২১ ০:০১

Khan Brothers Group

দুই পোশাক শ্রমিক নিহত, বিক্ষোভ, চালক গ্রেপ্তার

এশিয়ানমেইল২৪.কম

প্রকাশিত : ০৫:০১ পিএম, ১ জানুয়ারি ২০১৯ মঙ্গলবার | আপডেট: ১২:৩৩ পিএম, ২ জানুয়ারি ২০১৯ বুধবার

ছবি: ধারণকৃত

ছবি: ধারণকৃত

নিজস্ব প্রতিবেদক: সুপ্রভাত বাসের চাপায় দুই পোশাক শ্রমিক নিহতের ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে ওঠে রাজধানীর মালিবাগ এলাকা। মঙ্গলবার দুপুরে এই ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা বেপরোয়া হয়ে উঠলে উত্তাল হয় মালিবাগ। এসময় শ্রমিকরা বাস ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে রাস্তা অবরোধ করে রাখে। প্রায় পাঁচঘণ্টা বন্ধ থাকার পর সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

 

দুই শ্রমিককে চাপা দেয়া বাসটি জব্দ এবং তার চালককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানান রামপুরা থানার ওসি এনামুল। তিনি আরো জানান, মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে মালিবাগ রেলগেট থেকে আবুল হোটেলের মাঝামাঝি জায়গায় ‘সুপ্রভাত’ পরিবহনের একটি বাসের চাপায় নাহিদ পারভীন পলি (১৯) ও মীম (১৩) ওই দুই পোশাক শ্রমিক মারা যান। নিহতরা মালিবাগের পদ্মা সিলেমা হলের বিপরীতে এমএইচ গার্মেন্ট কারখানায় কাজ করতেন।

 

পলির গ্রামের বাড়ি নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলায়, মীমের বাড়ি বগুড়ার গাবতলী উপজেলায়। মগবাজারের পূর্ব নয়াটোলায় একটি রুম ভাড়া নিয়ে থাকতেন তারা।

 

দুর্ঘটনায় তাদের মৃত্যুর খবর শুনে আশপাশের কয়েকটি গার্মেন্টের কয়েকশ শ্রমিক রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ শুরু করেন। এ সময় তারা মালিবাগ থেকে রামপুরা অভিমুখী সড়কে অর্ধশতাধিক গাড়ি ভাংচুর এবং দুটি বাসে আগুন দেন।

 

শ্রমিকদের বিক্ষোভের মধ্যে ওই এলাকার একটি বাসায় আটকা পড়েন ট্রাফিক পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার নাজমুন নাহার। সন্ধ্যার দিকে তাকে উদ্ধার করে আনার সময় বিক্ষুব্ধ শ্রমিকরা পুলিশকে লক্ষ করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করেন।

 

পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার আনোয়ার হোসেন জানান, পুলিশ কর্মকর্তাকে আগারগাঁওয়ে জাতীয় চক্ষু বিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে নেয়া হয়।

 

এদিকে বিক্ষোভের সময় ওই এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রাখা হয়। বিক্ষুব্ধরা সরে গেলে ৭টার পর সেখানে বিদ্যুৎ আসে।

 

 

এম/আর/এস/এইচ