ঢাকা: ২০১৯-০২-২১ ১৮:৪৯

Khan Brothers Group

কেমিক্যাল কারখানা উচ্ছেদে মনিটরিং সেল হবে: ডিএমপি

এশিয়ানমেইল২৪.কম

প্রকাশিত : ০৬:৩৪ পিএম, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ বৃহস্পতিবার

ছবি: সংগৃহীত

ছবি: সংগৃহীত

নিজস্ব প্রতিবেদক : চকবাজারে মর্মান্তিক অগ্নিকাণ্ডের ঘটনার পর ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, পুরান ঢাকার অবৈধ কেমিক্যাল গোডাউন ও দাহ্য পদার্থের কারখানা উচ্ছেদে সিটি করপোরেশন, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পুলিশের সমন্বয়ে একটি মনিটরিং সেল গঠন করা হবে।এই মনিটরিং সেল পুরো এলাকায় জরিপ করে অবৈধ কেমিক্যাল গোডাউন ও দাহ্য পদার্থের কারখানার তালিকা প্রস্তুত করবে। এরপর ধারাবাহিকভাবে তাদের উচ্ছেদ করা হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর পুরান ঢাকার চকবাজারের চুরিহাট্টায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে যাওয়া ভবন পরিদর্শন শেষে উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ভয়াবহ এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৭০ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এসব মরদেহের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। এছাড়াও এই অগ্নিকাণ্ডে আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক। অগ্নিদগ্ধ ৯ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে এ সময় জানান তিনি।

আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, আবাসিক এলাকায় শিল্প কারখানা অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ ও জননিরাপত্তার জন্য হুমকি। তাই এসব অবৈধ গোডাউন বা কারখানা উচ্ছেদে সরকার কঠোর অবস্থানে রয়েছে।

তিনি বলেন, আগুনে পুড়ে যাওয়া এসব ভবনে অবৈধ গোডাউন ও দাহ্য পদার্থ ও প্লাস্টিকের কারখানা ছিল। এজন্য আগুন দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। আগুন পুরো এলাকায় ছড়িয়ে পড়তে পারতো। তখন অবস্থা আরো ভয়াবহ হতে পারতো। কিন্তু দমকল বাহিনীর কর্মীরা জীবনবাজি রেখে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

প্রসঙ্গত, বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে পুরান ঢাকার চকবাজারের চুড়িহাট্টা মসজিদের পাশে একটি পাচঁতলা ভবনে আগুন লাগে। পরে আগুন আশপাশের আরো তিনটি ভবনে ছড়িয়ে পড়ে। ফায়ার সার্ভিসের ৩৭টি ইউনিট প্রায় ৯ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এই অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ৭০ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে এবং ৪১ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

-জেডসি