ঢাকা: ২০১৮-০৮-১৫ ৮:০৮

Khan Brothers Group

সিরিয়ায় সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় নিহত ২০

এশিয়ানমেইল২৪.কম

প্রকাশিত : ০৯:৫৮ এএম, ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ শুক্রবার | আপডেট: ০৫:১১ পিএম, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ শুক্রবার

ছবি: ইন্টারনেট

ছবি: ইন্টারনেট


ডেস্ক রিপোর্ট : সিরিয়ায় বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকায় বিমান হামলায় ষাট ফুট মাটির নিচে গড়ে তোলা একটি হাসপাতালে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। একে দেশটির অন্যতম সুরক্ষিত হাসপাতাল বিবেচনা করা হতো। বৃহস্পতিবারের বোমা হামলার পর হাসপাতালটি থেকে দেয়া সব ধরনের চিকিৎসা সেবা বন্ধ রয়েছে।  এ ঘটনায় কোন হতাহতের খবর পাওয়া না গেলেও এ দিন সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় অত্যন্ত ২০ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। বিদ্রোহী অধ্যুষিত গোওতা প্রদেশে গোলন্দাজ বাহিনীর হামলায় আরও তিন শিশু নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে। খবর এএফপি ও বিবিসি।  

সিরিয়ার সরকার নিয়ন্ত্রিত সংবাদ সংস্থা সানা জানায়, বিদ্রোহীদের পাল্টা গোলাবর্ষণে রাজধানী দামেস্কে সাত বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আলেপ্পো ও ইদলিব প্রদেশের কয়েকটি এলাকা বিমান হামলায় গুঁড়িয়ে দিয়েছে সরকারি বাহিনী। প্রদেশ দুটিতে রুশ বাহিনীর সহায়তায় বিদ্রোহী ও জিহাদি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে সিরিয়ার সরকারি যোদ্ধারা।

সিরিয়ান অবজার্ভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, আলেপ্পোর দক্ষিণাঞ্চলের দুটি গ্রামে সরকারি বাহিনীর অভিযানে অন্তত ১৫ জন বেসামরিক লোক নিহত হয়েছেন। এছাড়াও ইদলিবের সারাকেব শহরে সরকারি হামলায় আরও পাঁচ ব্যক্তি নিহত হন।

জাতিসংঘ জানিয়েছে, অবরুদ্ধ এলাকায় কোন ত্রাণ সহায়তা পৌঁছানো সম্ভব হচ্ছে না। কাফর জিটা শহরে গুহার মতো দেখতে ভূগভর্স্থ আল মাগহারা হাসপাতালে পাঁচটি ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালানো হয়েছে।

চিকিৎসা বিষয়ক দাতব্য সংস্থা ইউনিয়ন অফ মেডিকেল কেয়ার এন্ড রিলিফ অর্গানাইজেশন (ইউওএসএসএম) জানিয়েছে, গোটা সিরিয়ায় এটাই ছিল সবচেয়ে সুরক্ষিত হাসপাতাল। আসন্ন হামলার খবরে শুনে রোগীদের আগেই সরিয়ে নেয়ায় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

সংস্থাটি জানায়, প্রায় অর্ধ লাখ মানুষের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালটি ব্যবহৃত হতো। গত এক মাসে সেখানে প্রায় দেড়শ অস্ত্রোপচার হয়েছে। দেশের কোন হাসপাতালই নিরাপদ না। কেবল জানুয়ারি মাসে বিভিন্ন হাসপাতালে চৌদ্দটি হামলার ঘটনা ঘটেছে।

সিরিয়া ও রাশিয়া বেসামরিক লোকজনের ওপর হামলার কথা অস্বীকার করেছে।

জেডসি